Advertisements
খেলা-ধুলা

কার্লোসের সঙ্গে অবৈধ ব্যবসা- ফেসে যাচ্ছেন বাংলাদেশের তারকা ক্রিকেটার

অবৈধ মুদ্রা, হুন্ডি ও মাদক ব্যবসা, অসামাজিক কর্মকাণ্ডসহ অন্ধকার জগতের ডন ছিলেন সালেহ আহমেদ ওরফে কার্লোস। অন্ধকার জগতে পা রাখার সঙ্গে সঙ্গে তিনি বদলে যান। রাতারাতি বনে যান কোটিপতি। দামি দামি গাড়ি হাঁকিয়ে অবৈধ কর্মকাণ্ড নির্বিঘ্নে করতেন। ব্যবহার করতেন জাতীয় সংসদের মনোগ্রামসংবলিত স্টিকার। অঢেল টাকার সুবাদে কার্লোসের বিভিন্ন পার্টিতে যোগ দিতেন শোবিজ জগতের নামিদামি মডেল ও অভিনেত্রীরা। এদের নিয়ে দেশ-বিদেশে ঘুরতেন। উপভোগ করতেন।

বাংলা সিনেমায় টাকা লগ্নি করার পেছনে তার উদ্দেশ্য ছিল ভিন্ন। সিনেমা বানানোর আড়ালে দেশের প্রতিষ্ঠিত ও নামকরা অভিনেত্রী থেকে শুরু করে উঠতি মডেলদের নিয়ে তিনি দেশ-বিদেশে ঘুরতেন। পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে কার্লোস আরও জানান, এদের মধ্যে আছেন মডেল ও অভিনেত্রী পিয়া বিপাশা, তানভিয়া জামান মিথিলা এবং আরেকজন বিতর্কিত মডেল পিয়াসা। এর মধ্যে ফ্যাশন হাউস এক্সটেসির মডেল তানভিয়া জামান মিথিলার সঙ্গে তার লিভটুগেদার চলছিল বলে কয়েকটি সংবাদমাধ্যম দাবি করে।

এ বিষয়ে একটি গণমাধ্যমকে মিথিলা বলেন, ‘আমি তাকে চিনি। একটি ছবিতে অভিনয় করা প্রসঙ্গে তার সঙ্গে কথা হয়েছিল। এর বাইরে কিছুই নয়। ’ এসব মডেল-অভিনেত্রীর একান্ত সান্নিধ্য উপভোগ ছাড়াও ব্যাংককের বড় বড় ডিস্কোয় কার্লোস মধ্যমণির আসন দখল করে রাখতেন। বিশেষ করে থাইল্যান্ডের পর্যটননগরী পাতায়ার রাশিয়ান ক্যাবারে ড্যান্সারদের নাচ দেখে তিনি দুই হাতে ডলারের বান্ডেল ছুড়ে দিতেন।

তবে নামিদামি মডেল ও অভিনেত্রীদের নামের সাথে জড়ালো বাংলাদেশি আরেক তারকা ক্রিকেটারের। তদন্ত সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানিয়েছে, কার্লোসের অবৈধ ব্যবসার সঙ্গে বাংলাদেশের একজন তারকা ক্রিকেটারের নাম উঠে এসেছে। ক্রিকেটারের নাম জানতে চাইলে সূত্রটি জানায়, এ মহুর্তে তার নাম বলা যাচ্ছে না তদন্তের স্বার্থে। তবে সেই ক্রিকেটারকে সবাই এক নামে চিনেন। এমনকি তার রেস্তোরা ও ইভেন্ট ম্যানেজমেন্টের ব্যবসা রয়েছে। কার্লোসের সঙ্গে সেই ক্রিকেটারের অস্ট্রেলিয়ার একটি গোপন স্থানে বৈঠক করার ছবিও উদ্ধার করেছে তদন্ত সংশ্লিষ্টরা।

Advertisements