ঢাকা

কর্মী ও রোগীর স্বজনদের মারামারি ভাঙচুরে ঢাকা মেডিকেলে আহত ৫

cরক্ত পরীক্ষা নিয়ে বাকবিতণ্ডার জের ধরে রোগীর স্বজন ও ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কর্মীদের সংঘর্ষে অন্তত পাঁচজন আহত হয়েছেন। গতকাল বুধবার রাতে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় রোগীর স্বজনরা হাসপাতালের ট্রান্সফিউশন মেডিসিন বিভাগের কাঁচের দরজা ভাঙচুর করেন। আহতদের প্রাথমিক চিকিত্সা দেওয়া হয়েছে।

শাহবাগ থানার ওসি আবু বকর সিদ্দিক বলেন, পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। কাউকে আটক বা গ্রেফতার করা হয়নি। এ ঘটনায় কোনো মামলাও হয়নি।

পুলিশ ও হাসপাতাল সূত্র জানায়, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ৩১০ নম্বর ওয়ার্ডে লুত্ফর রহমান নামে এক আইনজীবীর মা লুত্ফুন্নেছা চিকিত্সাধীন রয়েছেন। গতকাল রাতে তার শরীরে রক্ত সঞ্চালনের প্রয়োজন পড়ে। এ কারণে দাতার সঙ্গে রোগীর রক্তের সাদৃশ্য (ক্রস ম্যাচ) পরীক্ষার জন্য হাসপাতালের নতুন ভবনের দোতলায় ট্রান্সফিউশন মেডিসিন বিভাগের ব্লাড ব্যাংকে যান লুত্ফর।

গতকাল রাত সাড়ে ৮টার দিকে তিনি সেখানে যাওয়ার পর কর্তব্যরত টেকনিশিয়ান দেলোয়ার জানান, ইনজেকশন সিরিঞ্জের বদলে টেস্টটিউবে রক্ত নিয়ে যেতে হবে। আর টেস্টটিউবে রক্তদাতার নাম থাকতে হবে। লুত্ফর কিছুক্ষণ পর টেস্টটিউবে রক্ত নিয়ে গেলেও তাতে কারো নাম লেখা ছিল না। এ নিয়ে দুজনের বাকবতিণ্ডা হয়। একপর্যায়ে উত্তেজিত লুত্ফর ও তার সঙ্গে থাকা কয়েকজন দেলোয়ারকে মারধর করেন। ব্লাড ব্যাংকের কাঁচের দরজাও ভাঙচুর করেন তারা।

এরপর হাসপাতালের কিছু কর্মী ও আনসার সদস্যরা মিলে তাদের মারধর করেন। এতে লুত্ফর ও তার ভাই ছাড়াও আহত হন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র পরিচয় দেওয়া দুই যুবক। তাদের নাম জাহিদ ও সাফি। তবে তাদের কারো আঘাতই গুরুতর নয় বলে জানা গেছে। দুই পক্ষের মারধরের সময় হাসপাতালে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

Add Comment

Click here to post a comment