অন্যরকম খবর

জঙ্গি অর্থায়নকারী ইমরান এলাকায় দানশীল হিসেবে পরিচিত

জঙ্গি অর্থায়নের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ থেকে র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার ইমরান আহমেদ তার নিজ এলাকায় দানশীল ব্যক্তি হিসেবে পরিচিত।

ইমরানের বাড়ি পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া উপজেলার ধানীসাফা ইউনিয়নের বুড়িরচর গ্রামে।

গত শনিবার নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ থেকে জিম টেক্সটাইলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ইমরান আহমেদকে গ্রেফতার করে র‌্যাব।

মঠবাড়িয়ার ধানীসাফা ইউনিয়নের ৩নং বুড়িরচর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য খোকন খান বলেন, ‘ইমরান আহমেদ এলাকায় দানশীল ব্যক্তি হিসেবে পরিচিত। ঈদের আগে তিনি বাড়িতে আসেন এবং এলাকার অসহায় লোকদের কাপড়-চোপড় ও টাকা-পয়সা দিয়ে সাহায্য করতেন। এছাড়া তিনি অনেক বয়সী লোকজনকে মাসিক ভিত্তিতে টাকা দিয়ে সাহায্য করতেন।’

ইমরানের চাচাতো ভাই আবুল কালাম আজাদ আকন জানান, ইমরানরা চার ভাই। এক ভাই জাকির হোসেন আকন গাজীপুরে গার্মেন্টস ব্যবসা করেন। আরেক ভাই আবু সালেহ আকন চীনে গার্মেন্টস ব্যবসা করেন। ছোট ভাই বাবু আকন ঢাকায় পড়াশুনা করেন। বাবা মৃত মাহাতাব হোসেন বাদশা মিয়া আকন ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো কোম্পানিতে ঊর্ধ্বতন পদে চাকরি করতেন। তিনি অনেক বছর আগে মারা গেছেন।

তিনি আরও বলেন, ইমরান আহমেদ পাঁচ বছর আগে এলাকায় একটি মাদ্রাসা ভবন তৈরি করে দিয়েছেন। স্থানীয়দের অনুদানে এটি চলে।

বুড়িরচরের ঐতিহাসিক মমিন মসজিদের পেশ ইমাম নিজামুল হক হারুন বলেন, মসজিদের পাশাপাশি আমি ওই মাদ্রাসায় স্থানীয় শিক্ষার্থীদের কুরআন শিক্ষা দেই।

স্থানীয় কামরুজ্জামান বাদশা বলেন, প্রতি বছর ২০ রোজার পরে ইমরান আহমেদ বাড়িতে এসে লোকজনকে জাকাত ফেতরার টাকা পয়সা দিতেন। এ সময় তিনি ৪-৫ দিন বাড়িতে থাকতেন। বাড়িতে নিজেদের ঘর না থাকায় আত্মীয় স্বজনদের বাড়িতে থাকতেন।

কামরুজ্জামান বাদশার দাবি, ইমরান একজন ভালো মানুষ। তিনি এরকম জঙ্গি কার্যক্রমে যুক্ত হতে পারেন না।

প্রসঙ্গত, জঙ্গি অর্থায়নের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে শনিবার নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ থেকে ইমরান আহমেদ ও তার সহযোগী শামীম মিয়াকে আটক করেছে র‌্যাব।

র‌্যাব জানায়, ইমরান বর্তমানে নব্য জেএমবির কেন্দ্রীয় দাওয়াত কমিটির শুরা সদস্য। ঢাকার গুলশান, বনানী ও মিরপুর এলাকার দাওয়াতী শাখার আমির হিসেবে কাজ করছেন তিনি।

এছাড়া আরও ১০টি জেলার দাওয়াতি কার্যক্রম সমন্বয় ও নিয়ন্ত্রণ হয় ইমরানের মাধ্যমে। তিনি কৌশলে দীর্ঘদিন ধরে জঙ্গিদের অর্থায়ন করে আসছে।

তবে তার কারখানার আর কেউ জঙ্গিবাদের সঙ্গে যুক্ত আছে কি না তা জানাতে পারেননি র‌্যাব সদস্যরা।

Advertisements





সর্বশেষ খবর