Advertisements
খেলা-ধুলা

এবার ডি ভিলিয়ার্স কোহলির সেই উদযাপন নিয়ে মুখ খুললেন

চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির সেমিফাইনালে বাংলাদেশের বিপক্ষে খেলতে নেমে ভারত যে খুব চাপে ছিল সেটা উইকেট পাওয়ার পর তাদের উদযাপন দেখলেই বোঝা যায়। শুরুতে ২ উইকেট হারানো বাংলাদেশের হাল ধরেন তামিম আর মুশফিক। এ দুজন ১২৩ রানের জুটি গড়ে ভারতকে চিন্তায় ফেলে দেন। কিন্তু তামিমের আউটের পর হাফ ছেড়ে বাঁচেন কোহলিরা।

তাদের উদযাপনেই ছিল কঠিন চাপ থেকে সাময়িক মুক্তি পাওয়ার ছাপ। ম্যাচের ৩৬তম ওভারের কেদার জাদবের করা ২য় বলটি মিড উইকেটের ওপর দিয়ে সজোড়ে হাঁকাতে চেয়েছিলেন মুশফিক। কিন্তু ঠিকঠাক ব্যাটে-বলে না হওয়ায় তিনি ধরা পড়েন ভারতের অধিনায়ক বিরাট কোহলির হাতে। ক্যাচ ধরার পর কোহলির উদযাপন ছিল দেখার মতো। হাতে বল রেখে, দুহাত শক্ত করে ধরে জিহ্বা বের করে তার সে উদ্ভট উদযাপন সবাই অবাক হয়ে দেখেছে।

সম্প্রতি ব্রিটিশ ব্রডকাস্ট চ্যানেলের কলামে কোহলি সম্পর্কে আলোচনায় ভিলিয়ার্স বলেন, ‘সে প্রাকৃতিক প্রতিভা দ্বারা সমৃদ্ধ। তবে সর্বোচ্চ সফলদের অংশ হিসেবে তার প্রতিভা কঠোর শ্রমের উপর নির্ভর করে। তার সোনালি প্রতিভা এবং দৃঢ় সংকল্পের পরও, বিরাটকে শিখতে হয়েছে উচ্চ অবস্থানে থেকে কীভাবে সেখানকার চাপের সাথে খাপ খাইয়ে নিতে হয়। ’

কোহলির জনপ্রিয়তার প্রশংসা করে ভিলিয়ার্স বলেন, ‘আপনি ভারতের যেকোনো শহরে গেলেই বিলবোর্ডে তার মুখ দেখতে পাবেন। ১.৩ বিলিয়ন নাগরিকসমৃদ্ধ একটি জাতির সবচেয়ে বেশি বিপণনযোগ্য ও জনপ্রিয় ব্যক্তি হওয়াটাও চাপ সৃষ্টি করে। একটি সেলফির আবেদন প্রাপ্তি ছাড়া সে কোথাও যেতে পারবে না। তার কথা, চলাফেরা এমনকি অঙ্গভঙ্গিও প্রিন্ট, ইলেকট্রনিক এবং সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রকাশিত হয়। ’

বাংলাদেশের বিপক্ষে জিভ বের করে উদযাপন করায় বেশ সমালোচিত হচ্ছেন কোহলি। তবে ভিলিয়ার্স থাকছেন তার পক্ষেই। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের বিপক্ষে কোহলি একটি উইকেট উদযাপন করেছিল বলে টুইটার শো শো আওয়াজ শুরু করেছিল। সে এরকম বাস্তবতার সাথে বেঁচে থাকতে শিখেছে।

Advertisements