Advertisements
খেলা-ধুলা

এটা আমাদের জন্য হতাশার, তারপরও আমার মুখে হাসি : কোহলি

১৮০ রানের হার আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির ফাইনালে। পাকিস্তান ৪ উইকেটে করলো ৩৩৮। জবাবে মাত্র ৩০.৩ ওভারে ১৫৮ রানে অল আউট ভারত! সেই ভারত যারা গতবারের চ্যাম্পিয়ন। যাদের সুযোগ ছিল রোববার ওভালে টানা দুই শিরোপা জিতে রেকর্ড স্পর্শ করার। আরো ছিল প্রথম দল হিসেবে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির তিন শিরোপা জিতে নতুন রেকর্ড গড়ার সুযোগ। কোথায় কি? সব শেষ যে নিদারুণ লজ্জার হারে! তারপরও ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলির মুখে হাসি থাকে কিভাবে?

থাকে। কারণ, খেলাটাই এমন। তিনি মেনে নিতে জানেন। যে দিনে যে সেরা সেই রাজা। কোহলির দর্শন এমনই। তাই টুর্নামেন্টের প্রাক ফেভারিট হয়েও শেষটায় এমন হারের পর হাসিমুখে সব কৃতিত্ব প্রতিপক্ষ পাকিস্তানকে দিয়ে দিতে জানেন কোহলি। ভারত নেতা শিরোপা হারানোর হতাশা বুকে চেপে মাইকের সামনে এসে বলে গেলেন, ‘পাকিস্তানকে অভিনন্দন জানাতে চাই। এটা তাদের জন্য এক বিস্ময়কর টুর্নামেন্ট। যেভাবে তারা সব নিজের করে নিলো তা তাদের অমিত প্রতিভাবান অনেক মেধাবী খেলোয়াড় থাকায় সম্ভব হয়েছে। তারা আবার প্রমাণ করেছেন, নিজের দিনে যে কোনো দলকে আপসেট করতে পারে।’

নিজেদের প্রসঙ্গ এরপর টানেন কোহলি। বিশ্বের সেরা ব্যাটিং লাইন আপ তার দলের। সেরা বোলিং লাইন আপও। তারপরও এই অবিশ্বাস্য পতন! ভক্তরা মানতে পারবেন না। কিন্তু তাদের অধিনায়ক মেনে নিয়ে বলেন, ‘এটা আমাদের জন্য হতাশার। তারপরও আমার মুখে হাসি দেখছেন। কারণ খুব ভালো খেলেই আমরা ফাইনালে উঠেছিলাম। তারা আমাদের আজ সব বিভাগেই একেবারে উড়িয়ে দিলো। এর সব কৃতিত্ব তাদের। খেলায় এমনটা ঘটেই থাকে। আমরা কাউকে কখনো হালকাভাবে নেই না। কিন্তু এদিন তারা খুব বেশি আগ্রাসী ও উজ্জীবিত ছিল।’

এর সাথে ম্যাচ বিশ্লেষণটা জেনে নিন কোহলির মুখে। তিনি বলেছেন, ‘বল হাতে আমরা আর কয়েকটি উইকেট নেওয়ার সুযোগ তৈরি করতে পারতাম। আমাদের সেরাটাই চেষ্টা করেছি। কিন্তু বল হাতেও তারা অনেক বেশি আক্রমণাত্মক ছিল। হার্দিক ছাড়া আমাদের কেউ কোনো প্রতিরোধ গড়তে পারেনি। ওর নকটা অবিশ্বাস্য। এখানে ছোটো ভুলে বড় ক্ষতি হয়। কিন্তু আমরা তো কেবল একটা ক্রিকেট ম্যাচ হেরেছি। এখানকার ভুল থেকে শিক্ষা নিয়ে আমাদের সামনে এগিয়ে যেতে হবে। আমরা আমাদের শক্তি দেখাতে চেয়েছি। কিন্তু তা যথেষ্ট ছিল না।’

Advertisements