আন্তর্জাতিক

এই অষ্টাদশীর কুমারীত্ব বিক্রি হচ্ছে ১৪ কোটি টাকায়!

tএকজন অষ্টাদশীর কুমারীত্ব বিক্রি হচ্ছে ১.৭ মিলিয়ন ব্রিটিশ পাউন্ডের বিনিময়ে৷ একটি জার্মান ওয়েবসাইটে ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় ১৪ কোটি ৪২ লাখ টাকায় রোমানিয়ান টিনএজার আলেক্সজান্দ্রা খেফরেনের কুমারীত্ব বিকোচ্ছে৷ ব্রিটিশ টিভিতে সাক্ষাৎকারে এ কথা স্বীকারও করে নিয়েছেন আলেক্সজান্দ্রা৷ তাঁর কুমারীত্ব বিক্রির জন্য ওই এসকর্ট সার্ভিস ওয়েবসাইটের কর্ণধার জ্যান জ্যাকোবিয়েল্সকি নেবেন ২০ শতাংশ কমিশন৷ গোটা প্রক্রিয়াটাই তিনি তদারকি করছেন বলে জানা গেছে৷

জ্যান ‘সিন্ডেরেলা’ নাম একটি জার্মান এসকর্ট সার্ভিস পরিষেবা প্রদানকারী ওয়েবসাইট চালান, তাও আবার ডর্টমুন্ডে নিজের বাড়ির বেডরুমে বসে৷ তাঁর কাছে আলেক্সজান্দ্রা-সহ চারজন কুমারী নারী রয়েছে বলে ফলাও করে ওয়েবসাইটে জানিয়েছেন ২৬ বছরের জ্যান৷ মুখের কথায় নয়, মহিলাদের রীতিমতো শারীরিক পরীক্ষার মধ্যে দিয়ে যেতে হয় কুমারীত্বের প্রমাণ দিতে৷ স্বাক্ষর করতে হয় এই মর্মে, যে তিনি কোনওদিন নিরোধ ব্যতীত কারও শয্যায় যাননি৷

জার্মানিতে দেহব্যবসা বৈধ, তাই পুলিশি ঝুট-ঝামেলার ভয় নেই জ্যানের৷ কিন্তু ২৬ বছরের জ্যানের বাবা-মা জানেন না ছেলে কী ব্যবসা করে! তাঁদেরই বেশি ভয় পান জ্যান৷ আলেক্সজান্দ্রার অবশ্য সে সব ঝামেলা নেই৷ তিনি একজন উঠতি রোমানিয়ান মডেল৷ তাঁর বাবা একজন পুলিশ, মা ফার্মাসিস্ট৷ মেয়ে যেভাবে দেহের বিজ্ঞাপন দিয়ে বেড়াচ্ছেন, তাতে বেজায় রুষ্ট তাঁর অভিভাবকরা৷ দু’জনেই মেয়েকে স্পষ্ট জানিয়েছেন, এখনই এসব বন্ধ না করলে বাড়ি ছাড়তে হবে৷

বাবা-মায়ের ‘হুমকি’তে অবশ্য ভয় পান না আলেক্সজান্দ্রা খেফরেন৷ স্পষ্টই জানিয়েছেন, ১.৭ মিলিয়ন পাউন্ড পেলেই অচেনা যে কোনও পুরুষের সঙ্গে শয্যায় যেতে রাজি তিনি৷ তিনি একা নন, তাঁর সমবয়সী আরও অনেকেই এই কাজ করে মোটা অর্থ আয় করেন৷ কেউ কেউ নিজের পড়াশোনার খরচ জোগার করতেও এই ব্যবসায় নামেন৷ ইতিমধ্যেই ওয়েবসাইটে বিজ্ঞাপন দেখে একজন ধনী ব্যবসায়ী তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন বলে মেল অনলাইনের কাছে দাবি করেছেন এই অষ্টাদশী রোমানিয়ান৷ এসকর্ট সার্ভিস ওয়েবসাইটটির কর্ণধার জ্যান জ্যাকোবিয়েল্সকিও বলেছেন, ‘আমি আলেক্সজান্দ্রাকে কোনও জোর করিনি৷ ও স্বেচ্ছায় কুমারীত্ব বিক্রি করতে আমার দ্বারস্থ হয়৷ আমি কমিশনের বিনিময়ে সাহায্য করছি মাত্র৷’

তাঁর আরও দাবি, কোনও ব্যক্তি যদি বিজ্ঞাপনে আকৃষ্ট হয়ে যোগাযোগ করেন, তাহলে সম্পূর্ণ স্বেচ্ছায় তাঁর শয্যাসঙ্গী হতে পারেন আলেক্সজান্দ্রা, ফ্লোরেনটিনারা৷ যাঁরা কুমারীত্ব বিক্রি করছেন, তাঁদের যদি কখনও মনে হয় ওই ব্যক্তি সুস্থ নন বা অসৌজন্যতাবোধ দেখাচ্ছেন, তাহলে সেখানেই সম্পূর্ণ চুক্তি বাতিল হয়ে যায়৷ নিরাপত্তা সংক্রান্ত বিষয়ে নাকি অত্যন্ত সতর্ক তাঁর এসকর্ট সার্ভিস, দাবি জ্যানের৷ কোন ব্যক্তি তাঁর এসকর্ট পরিষেবার সুবিধা পেতে চাইলে আগাম ৪০ শতাংশ টাকা জমা দিতে হয়, বাকিটা পরে দিলেই হয়৷ আলেক্সজান্দ্রা আগামী বছরের ফেব্রুয়ারি মাস পর্যন্ত অপেক্ষা করবেন বলে জানা গেছে৷ বিজ্ঞাপন দেখে যে ব্যক্তি সবচেয়ে বেশি টাকা দেবেন, তাঁর শয্যাতেই যাবেন আলেক্সজান্দ্রা৷

ভিডিওঃ নিজের চোখে দেখুন! সাপের মাথা থেকে কি ভাবে নাগমনি নেয়া হয় (ভিডিও)

Advertisements

Add Comment

Click here to post a comment