জাতীয় রাজনীতি

‘আলোচনার দায়িত্ব বিএনপি নেবে না’

‘দেশের চলমান সংকট নিয়ে আলোচনার দায়িত্ব বিএনপি নেবে’ উল্লেখ করে দলটির ভাইস-চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু বলেছেন, সময় বেশি নাই, অনতিবিলম্বে দেশের চলমান সংকট নিয়ে বিএনপিসহ সকল বিরোধী দলের সাথে আলোচনায় বসুন। ব্যর্থ হলে যে আন্দোলনের ঝড় উঠবে তাতে আপনারা তছনছ হয়ে যাবেন। এ আন্দোলন ২০১৪ সালের মত নয়, এটি হবে দেশে সত্য প্রতিষ্ঠিত করার আন্দোলন।

মঙ্গলবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বিএনপির চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা জয়নাল আবেদীন ফারুকের মুক্তির দাবিতে এক মানববন্ধনে তিনি এসব কথা বলেন। মানববন্ধনটির আয়োজন করে জাতীয় গণতান্ত্রিক আন্দোলন নামের একটি সংগঠন।

শামসুজ্জামান দুদু অভিযোগ করে বলেন, সরকার আবারও ২০১৪ সালের ৫ই জানুয়ারির মত একদলীয় নির্বাচন করার পাঁয়তারা করছে। বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে প্রতি সপ্তাহে দু’বার কোর্টে নিয়ে কারাঘরে নেয়ার যাবতীয় ব্যবস্থা করেছে।

বিএনপি নির্বাচনে যাবে তবে কোনো অবস্থাতেই শেখ হাসিনার অধিনে নয় বলেও মন্তব্য করেন বিএনপির এই নেতা।

সরকারের উদ্দেশ্য তিনি আরও বলেন, আপনারা সারা দেশে নৌকা মার্কায় ভোট চাইবেন আমরা কোর্টের বারান্দায় ঘুরবো এটা সুষ্ঠু নির্বাচনের লক্ষণ নয়। দেশে সুষ্ঠু নির্বাচন করতে হলে সকল রাজবন্দীদের মুক্তি দিতে হবে। খালেদা জিয়া, তারেক রহমানসহ সকল বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের উপর দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করতে হবে এবং দেশে ভয়হীন আতংক মুক্ত পরিবেশ সৃষ্টি করতে হবে।

মানববন্ধনে অংশ নিয়ে বিএনপি চেয়ারপারসনের অপর উপদেষ্টা আব্দুস সালাম বলেন, ক্ষমতাসীন সরকার ব্যাংকের টাকা নির্দিধায় লুটপাট করছে। যখন যাকে খুশি গুম, অপহরণ করছে। শুধু ঢাকা নয় সারা দেশ এখন আতঙ্কে পরিণত হয়েছে। আমরা সংবিধান মানি কিন্তু যে সংবিধান দেশের ভোটাধিকার নিশ্চিত করতে পারে না সে সংবিধান মানি না।

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি এম জাহাঙ্গীর আলমের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে আরও বক্তব্য রাখেন, তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সহ সম্পাদক কাদের গণি চৌধুরী, নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মোহাম্মাদ রহমতউল্লাহ, স্বাধীনতা অধিকার আন্দোলনের সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান মনির, এনডিপির প্রেসিডিয়াম সদস্য মঞ্জুর হোসেন ঈশা, জাতীয়তাবাদী নাগরিক দলের সভাপতি শাহজাদা মো. ওমর ফারুক প্রমুখ।