জাতীয়

‘অযথা সাপ মেরে নতুন বিপদ ডেকে আনবেন না’

রাজশাহী মহানগরসহ বিভাগের কয়েকটি জায়গা থেকে গত কয়েকদিনে বেশ কয়েক ডজন সাপ উদ্ধার করে পিটিয়ে মারা হয়েছে। একইসঙ্গে বাগমারার একটি বাড়ি থেকে ৫৫টি সাপের ডিম উদ্ধার করে তা নষ্ট করা হয়েছে। বসতবাড়িতে সাপের উপদ্রবের ঘটনায় সেখানকার মানুষের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করলেও এ বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো: শাহরিয়ার আলম।

এভাবে ‘নিরীহ প্রাণী সাপ’ মারা এবং সাপের ডিম নষ্ট করায় উদ্বেগ প্রকাশের পাশাপাশি তা নিরুৎসাহিত করতে ফেসবুকে দেয়া এক পোস্টে তিনি লিখেছেন:

‘ভয়ে ভয়ে একটা কথা বলি!

যতদুর জানি

সাপ নিরীহ প্রাণীদের একটা। সাপ শুধুমাত্র আঘাত পেলে ছোবল দেয়। দেশের হাসপাতালগুলোতে এখন যথেষ্ট পরিমান এন্টিভেনম আছে।

কয়েকদিন থেকে দেখছি রাজশাহী থেকে শুরু করে বাংলাদেশের আনাচে কানাচে সাপ খুজে খুজে মারা হচ্ছে। প্রায় সব পত্রিকা সেটা গ্রহণযোগ্য ভাবে প্রচার করছে। না বুঝে নতুন করে মানুষ সাপ মারতে উৎসাহিত হচ্ছে। এইসব জায়গার কোথাওই সাপেড় কামড়ে সম্প্রতি কেউ মারা গেছেন তাও শোনা যায়নি। কিন্তু তবুও চলছে সাপ মারা।

আপনারা জানেন প্রাকৃতিক ভারসাম্য ধরে রাখতে সাপের অবদান? পোকামাকড়, কীটপতঙ্গ সাপের প্রধান খাবার? সাপ এগুলো না খেলে আমরা হয়তো টিকতে পারতাম না।

ইদুরের গর্তে ঢোকে সাপ ইদুর ধরার জন্য। যেসব জায়গায় সাপ ধরে ধরে মারা হচ্ছে সে সব জায়গায় আগেও সাপ ছিলো, বাচ্চা হতো। সেই সাপগুলো ইদুর নিধন করতো। বর্তমান ধারা চলতে থাকলে এই জায়গাগুলো ইদুরের দখলে চলে যাবে। আর ইদুর যে কি ক্ষতি করতে পারে তা আমরা সকলেই জানি এবং বুঝি।

ঝুঁকি মনে হলে বাসায় কার্বলিক এসিড রাখবেন। খুব সমস্যা মনে হলে সাপ ধরে (গ্রামে সাপ ধরার মানুষ পাওয়া যায়) বন বিভাগ বা প্রাণী বিভাগে দিয়ে দিবেন কিন্তু অযথা মেরে নতুন বিপদ ডেকে আনবেন না দয়া করে।’