রাজনীতি

অযথা মাঠ গরম না করে নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে বৈঠক করেন

বিএনপির উদ্দেশে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, অযথা মাঠ গরম না করে নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে বৈঠক করেন, কীভাবে নির্বাচন কমিশনকে শক্তিশালী করা যায়।

শনিবার পাবনা সার্কিট হাউসে জেলা আইনশৃঙ্খলা ও উন্নয়ন সমন্বয় কমিটির সভায় তিনি একথা বলেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, আগামী ১ থেকে দেড় বছরের মধ্যে সংবিধান অনুযায়ী শেখ হাসিনার অধীনেই নির্বাচন হবে। সারা দুনিয়ায় এখন নির্বাচিত সরকারের অধীনে নির্বাচন হচ্ছে। কিছুদিন আগে আমেরিকায় ওবামার অধীনে নির্বাচন হলো কিন্তু ওবামার প্রার্থী হেরেছেন। বৃটেনে নির্বাচিত সরকারের অধীনে আগাম নির্বাচন হল নির্বাচিত সরকারের অধীনে। কাজেই বিএনপির এত ভয় কেন?

তিনি বলেন, আসলে বিএনপি ভয় পায় জনগণকে। কারণ জনগণের ওপর তাদের আস্থা নেই।

উন্নয়নের কারণে, জনগণের সেবার কারণে আগামী নির্বাচনে শেখ হাসিনাই বিজয়ী হবেন বলেও আশাবাদ ব্যক্ত করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

বর্তমান নির্বাচন কমিশন স্বাধীন উল্লেখ করে ১৪ দলের এই মুখপাত্র বলেন, এই স্বাধীন নির্বাচন কমিশন নির্বাচন পরিচালনা করবে। এই নির্বাচন কমিশনের অধীনে স্থানীয় নির্বাচন সুষ্ঠু এবং নিরপেক্ষ হয়েছে। আমরা হেরেছি। কাজেই আগামী নির্বাচনও সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হবে।

তিনি বলেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকার বিতর্কিত এবং খালেদা জিয়াই তা বিতর্কিত করেছেন। ২০১৭ সালে তিনি ইয়াজউদ্দিনকে প্রেসিডেন্ট হিসেবে তত্বাবধায়ক সরকার প্রধান করেন। সুপ্রিমকোর্ট তা বাতিল করে দেয়। এরপর সংবিধান সংশোধনী করে ওই বিতর্কিত বিধান বাতিল করা হয়েছে। এতে আর ফিরে যাওয়ার সুযোগ নেই।

জেলা প্রশাসক রেখা রানী বালোর সভাপতিত্বে সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান শরিফ ডিলু, পাবনা-৫ আসনের এমপি গোলাম ফারুক প্রিন্স, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রেজাউল রহিম লাল, পুলিশ সুপার জিহাদুল কবির, পাবনা মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ডা. রিয়াজুল হক, সিভিল সার্জন ডা. তাহাজ্জেল হোসেন, পাবনা প্রেসক্লাবের সভাপতি প্রফেসর শিবজিত নাগ, ফরিদপুর পৌর মেয়র খম মাজেদ প্রমুখ।

পরে স্বাস্থ্যমন্ত্রী নবনির্মিত পাবনার সিভিল সার্জন অফিস উদ্বোধন করেন ও পাবনা মেডিকেল কলেজ পরিদর্শন করেন।