অন্যরকম খবর

অদ্ভুত চুলের স্টাইল, স্কুলছাত্রী বহিষ্কার! ছবিতে দেখুন

অদ্ভুত চুলের স্টাইলের জন্য ইংল্যান্ডের উত্তর ইয়র্কশায়ারে এক ছাত্রীকে স্কুল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। এ কারণে স্কুল কর্তৃপক্ষের উপর ক্ষেপেছেন ওই ছাত্রীর বাবা। ১৪০ পাউন্ড খরচ করে বাবা নিজেই তার মেয়ের চুলের স্টাইল করিয়ে দিয়েছিলেন। তিনি স্কুল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে বৈষম্যের অভিযোগ এনেছেন।

বাবা ডারেন বেনসন তার আদরের কন্যা চেনিজ বেনসনের চুলের বেনি করিয়ে দিয়েছেন। তাতে খরচ হয়েছিল ১৪০ ব্রিটিশ পাউণ্ড। বাংলাদেশি মুদ্রায় যা প্রায় ১৬ হাজার ৮০০ টাকা। কিন্তু সেই চুলের স্টাইল মেয়ের স্কুল কর্তৃপক্ষ গ্রহণ করেনি। তাই স্কুল কর্তৃপক্ষ তার মেয়ে চেনিজকে স্কুল থেকে বের করে দিয়েছেন। আর এতেই রেগেমেগে আগুন চেনিজের বাবা ডারেন বেনসন।

ডারেন বেনসনবাবা ডারেন বেনসনের সাথে মেয়ে চেনিজ বেনসন। এভাবে স্কুল থেকে বের করে দেওয়ার জন্য রেগে আগুন হয়েছেন তার বাবা।

বাবা ডারেন বেনসনের দাবি, তার মেয়ের চুলের স্টাইলের মত স্টাইল অন্য শিক্ষার্থীরাও করেছে। তাদেরকে কিছু বলা হচ্ছে না। অথচ তার মেয়েকে স্কুল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। সেজন্য তিনি  স্কুল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে বৈষম্যের অভিযোগ করেন।

ডারেন বলেন, ‘মেয়ের চুলের স্টাইলের জন্য আমি ১৪০ব্রিটিশ পাউণ্ড ব্যয় করেছি। তার বন্ধুরাও চুলের স্টাইল করে কিন্তু স্কুল কর্তৃপক্ষ তাদেরকে কিছু বলে না। তারা অনেকে লাল রঙের বেনি করে চুলের স্টাইল করেছে। আর আমার মেয়ে সাদা রঙের বেনি করেছে। অর্থ্যাৎ মার্জিতের দিক দিয়ে আমার মেয়ে তাদের চেয়ে ভালই আছে।’

চেনিজ বেনসনচুলে কতকগুলো ভাগ করে আলাদা সাদা রঙের সুতা দিয়ে বেনি করেছিলেন চেনিজ বেনসন। এই স্টাইলের বেনি করতে তার খরচ হয়েছিল ১৪০ ব্রিটিশ পাউণ্ড।

তিনি আরও বলেন, ‘আমি স্কুলের নীতিমালা ভালোভাবে পড়েছি। মেয়ের যে স্টাইল করা হয়েছে তাতে কোন ধরণের নীতিমালা ভঙ্গ হয়েছে বলে আমার মনে হয় না।’

বিষয়টি নিয়ে বাবা ডারেন খুবই ক্ষিপ্ত। তিনি ইতিমধ্যে উত্তর ইয়র্কশায়ার কাউন্টি কাউন্সিলের সাথে যোগাযোগ করেছেন। তিনি জানিয়েছেন, তার মেয়ের স্কুল কর্তৃপক্ষ তার প্রতি অবিচার করেছে।

ডারেন বেনসনছবিতে বাবা ডারেন বেনসন। তিনি দাবি করেন, তার মেয়ের প্রতি বৈষম্য করেছে স্কুল কর্তৃপক্ষ।

স্কুলের ওয়েবসাইটে চুলের স্টাইল করা না করা বিষয়ে নীতিমালা করা আছে। সেখানে বলা হয়েছে, ‘লক্ষ্য রাখুন, আমরা চুলে রঙ করা, অস্বাভাবিক ও অতিরঞ্জিত স্টাইল করা অনুমোদন করি না। চুল ঠিক রাখার জন্য সাধারণ ‍উপকরণ ব্যবহার করা যেতে পারে, তবে অতিরঞ্জিত করে সাজানোর জন্য কোনো উপকরণ ব্যবহার করা যাবে না। এ বিষয়ে আপনার পরিস্কার ধারণা না থাকলে আপনার ছেলে বা মেয়ের শিক্ষকের সাথে যোগাযোগ করে বিষয়টি পরিস্কার হতে পারেন। আর চুল অবশ্যই খুব ছোটও রাখা যাবে না।’

চেনিজ বেনসনজর্জ পিন্ডার স্কুলের নীতিমালালে বলা হয়, চুলকে অতিরঞ্জিত করে সাজানোর জন্য কোনো উপকরণ ব্যবহার করা যাবে না।

নীতিমালায় আরো বলা হয়েছে, ‘আরো জেনে রাখুন, কোনটি উচিত আর কোনটি অনুচিত এটি শুধু স্কুল কর্তৃপক্ষ নির্ধারণ করবে। এবং স্কুল কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তই চুড়ান্ত হিসেবে বিবেচিত হবে। তাই শিশুকে স্কুলে পাঠানোর আগে নীতিমালা সম্পর্কে ভালোভাবে তাকে জানান। আর পোশাক, জুয়েলারি ও চুলের স্টাইলের নীতিমালা সম্পর্কে জানতে স্কুল কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করুন।’

জর্জ পিন্ডার স্কুলের এক মুখপাত্র বলেন, ‘এই প্রথম কোনো অভিযোগ আমার কাছে আসলো। এখন যেহেতু ছুটি চলছে, তাই এই মুহূর্তে সমস্ত তথ্য নিয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করা সম্ভব না। ছুটি শেষে সেটি খতিয়ে দেখা হবে।’

ভিডিওঃ পাকিস্তানি মেয়ের এই ড্যান্স দেখলে চোখ কপালে উঠবে আপনার (দেখুন ভিডিও)

Add Comment

Click here to post a comment